Deshebideshe tv

সুপারহিট সিনেমাগুলোর মজার মজার সব ভুল

সুপারহিট সিনেমাগুলোর মজার মজার সব ভুল

একটি গল্পকে কেটেছেঁটে রূপান্তর করা হয় চিত্রনাট্যে, আবার সেই চিত্রনাট্যকে নানা নাটকীয়তার মধ্য দিয়ে কোটি কোটি টাকার বিনিয়োগে তৈরি করা একটি ছবি। প্রযোজক, পরিচালক এবং হাজার হাজার লোকের অক্লান্ত পরিশ্রম ও বুদ্ধির জোরেই সাফল্য অর্জন করতে পারে একটি ছবি। আচ্ছা, সিনেমা গুলো কি নিখুঁত হয়? কখনোই না! আপনার দেখা এবং ভীষণ প্রিয় কিছু সিনেমায় এমন কিছু ভুল আছে যেগুলো শুনলে রীতিমত অবাক হবেন আপনি। আর ভাববেন, ভুল গুলো আগে চোখে পড়েনি কেন?

থ্রি ইডিয়টস
রাজ কুমার হিরানি পরিচালিত এবং আমির খান অভিনীত ‘থ্রি ইডিয়টস’ এমন একটি ছবির নাম যা শুধুমাত্র একটি বিনোদনের উপজীব্য না হয়ে মানুষের ভিতরকার বিবেককে উজ্জীবিত করতে সক্ষম। তবে মজার ব্যাপার হল মিঃ পারফেক্টশনিস্ট আমির খানের মতো একজন অভিনেতা থাকতে কিভাবে এত বড় ভুল হয়ে গেল ছবি নির্মাতাদের দ্বারা। ছবিটিতে দশ বছর আগের ফ্ল্যাশ ব্যাকে দেখানো হয় যে আমির খান এবং মাধবান ইন্টারনেট ডাটা কার্ড ব্যবহার করে পড়াশোনার কাজ চালাতেন যেখানে প্রকৃত পক্ষে দশ বছর পূর্বে কোনো ওয়্যারলেস ইন্টারনেটের ব্যবস্থা ভারতে ছিল না।

দিলওয়ালে দুলহানিয়া লেজায়েঙ্গে
যশ চোপড়ার প্রযোজনা সংস্থার সর্বকালের সেরা প্রেমের কাহিনী কোনটি? এক বাক্যে উত্তর আসবে দিলওয়ালে দুলহানিয়া লেজায়েঙ্গে। ১৯৯৫ সালে মুক্তি পাওয়া এই ছবিটি ১০৬ কোটি টাকার ব্যবসা করে। ছবিটি রাজ-সিমরানের প্রেমের গল্প নিয়ে তৈরি করা হয়। মজার ব্যাপার হলো, ছবিটিতে সিমরান একটি রক্ষনশীল পরিবারের মেয়ে হওয়া সত্ত্বেও বান্ধুবিদের সাথে পুরো ইউরোপ ভ্রমণে যাওয়ার জন্য কোনো না কোনো ভাবে পটিয়ে ফেলে তার বাবাকে। আবার কাকতালীয় ভাবে একই উদ্দেশ্যে ভ্রমনে বেরিয়ে পড়ে রাজ তার বন্ধুদের সাথে নিয়ে। এবং আরও চোখে পড়ার মতো ব্যাপার হল একই কেবিনে সিমরান এবং রাজের বন্দী হয়ে যাওয়া এবং বন্ধুদেরকে খুঁজে পাওয়া। তবে সবচাইতে লক্ষণীয় ভুল হচ্ছে ইউরোপের বরফ ঢাকা পর্বত-শৃঙ্গে দেখা যায় কাজল ও শাহরুখ খানকে নাচে গানে মেতে উঠতে দেখা যায় কোনো প্রকার শীতের পোশাক ছাড়াই!

হেরা ফেরি
প্রিয়দর্শনের হাস্যরসে ভরা চলচ্চিত্র ‘হেরা ফেরি’। বেশী পর্যালোচনা করলে হয়তোবা হাজার হাজার অসঙ্গতি চোখে পড়তে পারে আপনার। কিন্তু অত গভীরে না গেলেও যে অসঙ্গতিটি আপনার চোখ এড়াবে না সেটি হল চলচ্চিত্রে একটা দৃশ্য থাকে এমন- সুনীল শেঠী অপেক্ষায় থাকে টয়লেটে যাবে বলে, কিন্তু অন্যদিকে কথা নেই বার্তা নেই হঠাৎ অক্ষয় কুমার টয়লেটে ঢুকে যায়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে সুনীল শেঠী উপরে খোলা টয়লেটে এক বালতি পানি ঢেলে দেয়। অক্ষয় তো ভিজে-টিজে একাকার। কিন্তু সবচাইতে বেমানান যে ব্যাপারটি চোখে পড়ে তা হলো, ভেজা অবস্থায় অক্ষয় কুমারের পায়ে নামীদামী হাইস্ট্রিট ব্র্যান্ডের চপ্পল, যা সিনেমায় তার দরিদ্র চরিত্রের সাথে মোটেও মানায় না। প্রিয়দর্শন পরিচালিত ‘হেরা ফেরি’ ছবিটি মুক্তি পায় ২০০০ সালে।

আঁখে
২০০২ সালে মুক্তি পাওয়া ‘আঁখে’ ছবি আলোচনার সৃষ্টি করে। তিন অন্ধকে দিয়ে দুর্ধর্ষ ব্যাংক ডাকাতির মতো নতুন এক চিত্রনাট্য নিয়ে হাজির হন পরিচালক ভিপুল আমরুত শাহ। পরেশ রাওয়ালের মতো দক্ষ অভিনেতার কৌতুক গুলো ছাড়া তেমন মজার কিছু না থাকলেও রয়েছে চোখে পড়ার মতো অসঙ্গতি। তিন অন্ধকে নিয়ে নানা রিহারসেল ও প্র্যাকটিসের মাধ্যমে পরিকল্পনা হয় ব্যাংক ডাকাতি করার। কিন্তু সিনেমায় যে উপায় গুলো দেখানো হয় তা আসলেই অসম্ভব। অনেক গুলো দৃশ্যেই দৃষ্টিশক্তি সম্পন্ন মানুষদের মত আই মুভমেন্ট দেখা যায় অভিনেতাদের মাঝে। ছবিটিতে অভিনয় করেছেন অমিতাভ বচ্চন, অর্জুন রামপাল, পরেশরাওয়াল, সুনীল শেঠীর মতো অভিনেতারা।

লাগান
লাগান ছবি দেখা হয়নি এমন বলিউড সিনেমাপ্রেমী পাওয়া অসম্ভব। ২০০১ সালে মুক্তি প্রাপ্ত ছবিটির কাহিনী রচনা এবং পরিচালনা করেন আশুতোষ গওয়ারকার। আমির খানের নিখুঁত অভিনয়, আশুতোষের বুদ্ধিদীপ্ত পরিচালনা ছবিটিকে দর্শকের মনে স্থান দিতে পেরেছিল। খাজনা আদায় নিয়ে গ্রামবাসীর সঙ্গে ব্রিটিশ অফিসারদের মনকষাকষি হয়। আর সে ঘটনার অবসান ঘটে গ্রামবাসী ও ব্রিটিশ অফিসারদের খেলার মধ্যদিয়ে। এই কাহিনী আসলেই সম্ভব কিনা সেই ভাবনা না হয় বাদ থাকুক। অসংখ্য অসঙ্গতির মাঝে একটি অসঙ্গতি এই যে ছবিতে নায়িকা ও ব্রিটিশ পার্শ্ব নায়িকাকে যেসব গহনা ব্যবহার করতে দেখা গিয়েছে, সেগুলো আসলে খুব বেশি পুরনো নয়। বলতে গেলে হাল ফ্যাশনের।